নিয়মিতকরণের পথে অগ্রসর হচ্ছে অসমের ৪১হাজার টেট শিক্ষকের চাকরি

0
ছবি : সংগৃহিত
তরঙ্গ বার্তা ডেস্ক : নির্বাচনের আগে টেট শিক্ষকের দেওয়া প্রতিশ্রুতির কথা মনে আছে রাজ্য বিজেপির। বিজেপির অসম প্ৰদেশ কমিটির বিশেষ উদ্যোগে নিয়মিতকরণের পথে অগ্রসর হচ্ছে অসমের ৪১হাজার টেট শিক্ষকের চাকরি। এমনই এক ইঙ্গিত মিললো রাজ্যিক বিজেপির তরফ থেকে।
মঙ্গলবার অসম রাজ্যিক বিজেপির একটি প্রতিনিধি দল রাজ্যে কর্মরত ৪১ হাজার ঠিকাভিত্তিক শিক্ষকদের (এসএসএ এবং স্টেটপুল) চাকরি নিয়মিতকরণের ব্যাপারে কেন্দ্ৰীয় মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্ৰীর সঙ্গে দেখা করলে কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ মন্ত্রী শীঘ্রই টেট শিক্ষকদের সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিয়েছেন।
রাজ্যিক সভাপতি রণজিৎ দাসের নেতৃত্বে যাওয়া প্রতিনিধি দল বর্তমানে শিক্ষকতায় নিয়োজিত টেট শিক্ষকদের চাকরি নিয়মিতকরণের ক্ষেত্রে ম্যাদ পার হয়ে যাওয়া ঠিকাভিত্তিক টেট শিক্ষকদের টেট সার্টিফিকেট এর সময়সীমা বৃদ্ধি ও অন্যান্য যোগ্যতা শিথিল করে অসম সরকার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার অনুমতি প্রদানের আবেদন জানিয়েছে।
তাঁদের এই আবেদনে কেন্দ্রীয় মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী রমেশ পখরিওয়াল সাড়া দিয়ে শীঘ্রই এই সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিয়েছেন বলে রাজ্যিক বিজেপির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। উক্ত প্রতিনিধি দলে করিমগঞ্জের বিজেপি সাংসদ কৃপানাথ মাল্লাও ছিলেন বলে জানা গেছে।
উল্লেখ্য, মাসকয়েক আগে আকাশবাণীর একটি অনুষ্ঠানে অসমের শিক্ষামন্ত্রী সিদ্ধার্থ ভট্টাচার্য টেট পাশ সার্টিফিকেটকে ড্রাইবিং লাইসেন্স এর সাথে তুলনা করে এক নতুন বিতর্কের সৃষ্টি করেছিলেন ৷ তা নিয়ে অসমের তেত্রিশটি জেলায় প্রতিবাদ কর্মসূচী পালন করেছিল ‘সদৌ অসম প্রাথমিক টেট উত্তীর্ণ শিক্ষক সমাজ’৷
আন্দোলন কর্মসূচি চলাকালীন ছবি
তারপর ৪১ হাজার কর্মরত ঠিকাভিত্তিক টেট শিক্ষকরা তাঁদের চাকরি বিনা শর্তে বেতন সুরক্ষা সহ নিয়মিতকরণের দাবিতে (এসএসএ এবং স্টেটপুল সহ) গত ২৯ জুন দিসপুর চলো অভিযান নাম দিয়ে আরেক বৃহৎ আকারের আন্দোলন গড়ে তুলেছিল । সেদিন খানাপাড়া পশু চিকিৎসা মহাবিদ্যালয়ের মাঠে প্রায় কুড়ি হাজার টেট শিক্ষকরা জমায়েত হয়েছিলেন।
রাজ্যিক বিজেপি সভাপতি রণজিৎ দাস টেট শিক্ষকদের এই আন্দোলন যুক্তিসঙ্গত বলে দাবি করে তিনি কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ মন্ত্রীর সাথে দেখা করে বিষয়টি সমাধানের আশ্বাস দিয়েছিলেন মিডিয়ায়। অবশেষে তাই করলেন তিনি। কিন্তু রহস্যজনক ভাবে এ ব্যাপারে এখনও মুখ খুলেননি অসমের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সনোয়াল এবং বিত্তমন্ত্রী ড. হিমন্ত বিশ্ব শর্মা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here