প্রবাসী ভারতীয়দেরকে সহিষ্ণুতা ও বৈচিত্র্যময় ঐক্যের পাঠ দিয়ে গেলেন রাহুল; দুবাইয়ের জনসভায় লোকে লোকারণ্য

0

শরীফ আহমদ, তরঙ্গ বার্তা, দুবাই: আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে রাহুল সমর্থকদের ভীড় ছিল দেখার মতো। ২৫০০০ দর্শকের আসনের একটাও খালি ছিল না। কয়েকহাজার দর্শক স্টেডিয়ামের বাইরেই রয়ে গেলেন। অনুষ্ঠানের সময় ছিল ৬ টায় কিন্তু রাহুল গান্ধী এলেন স্থানীয় সময় বিকেল ৭ টায়।

প্রবাসী ভারতীয়দের উদ্দেশ্যে আহুত সভায় আসার আগে ইউএইর প্রধানমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তিনি। সভায় এসে এদেশের সরকারের প্রসংশা করেন। বলেন, সংযুক্ত আরব আমিরাতে যেভাবে বিভিন্ন দেশ, জাতি, ভাষাভাষী ও ধর্মের লোককে কর্মক্ষেত্রে নিয়োজিত করেছে তাতেই বোঝা যায় যে সহিষ্ণুতা এদেশের এক প্রধান বৈশিষ্ট্য। ভারতে গত চার বছর থেকে এই সহিষ্ণুতা ক্ষয়ে যাচ্ছে। ভারতীয়রা যে কর্মঠ, সহাবস্থানে বিশ্বাসী তা দুবাইয়ের কর্মযজ্ঞ দেখলেই বোঝা যায়। এই ভারতীয়দের অক্লান্ত পরিশ্রমের জন্য‌ই দুবাই আজ বিশ্বের একটি শ্রেষ্ঠ ও আকর্ষণীয় শহর হতে পেরেছে। উল্লেখ্য বিশ লাখের উপর ভারতীয় সংযুক্ত আরব আমিরাত আছেন যা মোট জনসংখ্যার প্রায় ২৭ শতাংশ।

বিশ মিনিটের বক্তব্যে তিনি বলেন, প্রবাসী ভারতীয়রা যারা দুবাই সহ ইউরোপ আমেরিকা বা অন্যান্য দেশে আছেন তাদের অনেক দায়িত্ব আছে। এর জন্য বিদেশে কর্মরতরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হতে হবে। আমাদের দেশের আজকের প্রধান সমস্যা বেকারত্ব। আপনাদেরকে দেশে বিনিয়োগ করতে হবে, সময় কাটাতে হবে আর আপনার ভাইদেরকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। চেষ্টা করতে হবে যাতে দেশে ক্ষুদ্র ব্যবসা শুরু করা যায়। তবেই আমরা চায়নার মতো দেশের মোকাবেলা করতে পারব। আপনারা জানিয়েছেন যে মূলস্রোতের রাজনীতিতে আপনারা আগ্রহী। কংগ্রেস আপনাদেরকে অঙ্গীকার করছে যে আপনাদেরকে সঠিক প্ল্যাটফর্ম দিতে আমরা বদ্ধপরিকর। এক নতুন ভারত গঠনের জন্য আপনাদের মতামত দেশে থাকা নাগরিকদের মতো সমানভাবে প্রযোজ্য। আজ আপনাদের প্রিয় জন্মভূমি ধর্মিয় কারণে বিভিন্ন স্তরে বিভক্ত। আমরা তা হতে দেব না আর। আপনাদেরকে সঙ্গে নিয়েই এই লড়াই চালিয়ে যেতে হবে। তবেই আমরা আমাদের দেশকে আগের মতো ফিরে পাবো।

বক্তব্য শেষ হ‌ওয়ার আগে রাহুল আবেগিক হয়ে যান ও বলেন, যতদিন পর্যন্ত আমি বেঁচে থাকব, আমার দরজা, আমার কান আর আমার হৃদয় আপনাদের জন্য সবসময় খোলা থাকবে। আমাদের দেশ খালি এক ভৌগলিক ক্ষেত্র নয়। দুবাইয়ে এলে বোঝা যায় এই দেশ হাজার হাজার হৃদয়ের সমষ্টি। আর আমাদের এই ঐক্য বজায় রাখতে কংগ্রেস পার্টি বদ্ধপরিকর। আপনাদেরকে কথা দিলাম।

ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আয়োজিত সভায় আসার আগে রাহুল গান্ধী ভারতীয় ব্যবসায়ীদের প্রতিনিধিদের সঙ্গে মত বিনিময় অনুষ্ঠানে যোগ দেন। পাঞ্জাবি ভারতীয়দের এক প্রতিনিধি দল‌ও রাহুলের সঙ্গে দেখা করেন। এরপর জেবেল আলী শ্রমিক শিবিরে গিয়ে নির্মাণ শ্রমিকদের সঙ্গে দেখা করেন। এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে বলেন, আপনারা আপনাদের রক্ত ঘাম দিয়ে খালি এই দেশ গড়েননি বরং আপনাদের অবদানে ভারতীয় অর্থনীতি অনেক উপরে উঠেছে। আপনারা দেশে নিজেদের পরিবার ও সমাজকে সাহায্য করার পাশাপাশি বেকারত্ব দূরীকরণে এক বৃহৎ প্রচেষ্টা করেছেন এবং করে যাচ্ছেন। এজন্য দেশবাসী আপনাদের কাছে ঋণী। আমি এখানে আপনাদের কথা‌ শুনতে এসেছি। আমার ‘মন কি বাত’ নয় বরং আপনাদের ‘মন কি বাত’ আমার কাছে অধিক গুরুত্বপূর্ণ। তিনি আরও বলেন কেন্দ্রে কংগ্রেসের সরকার এলে অন্ধ প্রদেশকে বিশেষ রাজ্যের মর্যাদা দেয়া হবে।

প্রথম দিনের সফরে সব জায়গায় রাহুল গান্ধীর সঙ্গে দেখা করতে ভারতীয়রা ভীড় করেছিলেন। স্বল্প সময়ের ভাষণে রাহুল এদেশে থাকা লোকদের মনে দাগ কেটে গেছেন‌। রাহুল গান্ধী সফরের দ্বিতীয় দিন আবুধাবিতে থাকবেন। বিভিন্ন স্থানে সরকারিভাবে আয়োজিত অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন ও ইউ‌এই সরকারের প্রতিনিধিদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন বলে কংগ্রেসের ওভারসিজ উইং জানিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here