প্রকাশিত হল বহু প্রতীক্ষিত এনআরসি’র চূড়ান্ত তালিকা, বাদ পড়লেন ১৯ লক্ষাধিক

0

তরঙ্গবার্তা ডেস্ক– সর্বোচ্চ ন্যায়ালয়ের নির্দেশে আজ ৩১ আগস্ট শনিবার প্রকাশিত হলো অসমীয়ার দলিল তথা বহু প্রতীক্ষিত রাষ্ট্রীয় নাগরিক পঞ্জী বা এনআরসির চূড়ান্ত তালিকা। সকাল দশটায় এন আরসির ওয়েবসাইটে এই তালিকা প্রকাশিত হয়েছে। তাছাড়া সংশ্লিষ্ট এনআরসি সেবা কেন্দ্রেও এই তালিকা উপলব্ধ।

এই চূড়ান্ত বা ফাইন্যাল এনআরসি তালিকায় ৩ কোটি ১১ লক্ষ ২১ হাজার ৪ জন লোকের নাম অন্তর্ভুক্ত হয়েছে । সব মিলিয়ে ১৯ লক্ষ ৬ হাজার, ৬৫৭ জন লোকের নাম এনআরসি তালিকা থেকে বাদ পড়লো। যারা চূড়ান্ত তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন তাঁদের যেতে হবে বিদেশী ন্যায়াধীকরণে। সময় দেওয়া হয়েছে ১২০ দিন। এই ১২০ দিনের মধ্যেই বাদ পড়াদের আবেদন করতে হবে। তাঁদের ভাগ্য নির্ধারণ করবে বিদেশী ন্যায়াধীকরণ।

উল্লেখ্য, রাজ্যিক এনআরসি দপ্তর থেকে জারি করা প্রেস বিজ্ঞপ্তি অনুসারে অসমের ৩ কোটি ৩০ লক্ষ ২৭ হাজার ৬৬১ জন আবেদনকারী এনআরসিতে নাম অন্তর্ভক্তির জন্য আবেদন করেছিল। এদের মধ্যে প্রথম খসড়া তালিকায় ১ কোটি ৯ লক্ষ লোকের নাম প্রকাশ প্রকাশিত হয়ছিল। ২০১৮ সালের ৩০ জুলাই এনআরসির সম্পূর্ণ খসড়া তালিকা প্রকাশ পায়। সেই সম্পুর্ণ খসড়া তালিকায় ২ কোটি ৮৯ লক্ষ ৮৩হাজার ৬৭৭জন লোকের নাম অন্তর্ভুক্ত হয়ছিল। সম্পুর্ণ খসড়া তালিকা থেকে চূড়ান্ত খসড়ায় এর আগে বাদ পড়েছিল ৪০ লক্ষ ৭ হাজার ৭০৭ জনের নাম। পরবর্তীতে তাঁদের ফের আবেদনের সুযোগ দেওয়া হয়। তাছাড়াও চলতি বছরের ২৬ জুন এনআরসি’র সম্পুর্ণ খসড়া তালিকা থেকে মোট ১ লক্ষ ২ হাজার ৪৬২ জনের নাম বাদ পড়েছিল। বাদপড়াদের নাম প্রকাশিত হয়েছে নাগরিক পঞ্জির সংযোজিত বহিষ্কার খসড়া তালিকায়। অর্থাৎ গত বছরের জুলাই মাসে প্রকাশিত এন আরসির সম্পূর্ণ খসড়া তালিকায় তাদের নাম ছিল। মোট ৩ কোটি ২৯ লক্ষ ৯১ হাজার ৩৮৪ জন আবেদনকারীর মধ্যে মোট ৪১ লক্ষ ১০ হাজার ১৬৯ জনের নাম বাদ পড়েছিল। 

এই অতিরিক্ত বহিস্কৃত তালিকা প্রকাশ করে এনআরসি দফতর জানিয়েছিল, যাদের নামে ডি-ভোটার, যাঁদের ইতিমধ্যেই বিদেশি বলে ঘোষণা করা হয়েছে অথবা যাঁদের নামে বিদেশী ন্যায়াধীকরণে মামলা ঝুলছে—তাঁদের নাম অতিরিক্ত বহিস্কার তালিকায় ঠাঁই পেয়েছে। তাছাড়া আগের সম্পূর্ণ খসড়া তালিকায় থাকা যাঁদের নাম যাচাই করার সময়ে অযোগ্য হিসেবে ধরা পড়েছে, তাঁদের নামও বাদ পড়েছে। তবে অসম সরকারে পক্ষ থেকে বাদপড়াদের অভয় দেওয়া হয়েছে।

প্রায় প্রতিটি জেলায় পর্যাপ্ত সংখ্যক বিদেশী ট্রাইব্যুনাল স্থাপন করা হয়েছে জানিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, বাদ পড়া যেসব মানুষের প্রয়োজন পড়বে তাদের আইনগত সহায়তা দেওয়ার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ওই বিবৃতিতে বলা হয়, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বাদ পড়াদের আপিল করা সম্ভব না হওয়ায় বর্তমান সময়সীমা ৬০ দিন থেকে বাড়িয়ে ১২০ দিন করা হয়েছে।

অসমের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোয়াল রাজ্যবাসীকে আতঙ্কিত না হওয়ার জন্য অভয় দিলেন। তিনি আশ্বাস দেন, প্রকৃত ভারতীয়দের নাম কোনো কারণে বাদ পড়লে তাঁদের নাগরিকত্ব প্রমাণের ক্ষেত্রে যাবতীয় সাহায্য ও সহযোগিতা প্রদান করার জন্য পদক্ষেপ গ্রহণ করবে তাঁর সরকার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here