কাশ্মীরের পুলওয়ামায় সন্ত্রাসী হামলায় নিহত অসমের বীর শহীদ মানেশ্বর বসুমাতারিকে মুখ্যমন্ত্রীর শ্রদ্ধাঞ্জলী

আজ বায়ুসেনার বিশেষ বিমানে মানেশ্বর বসুমাতারীর নশ্বর দেহ গুয়াহাটীতে আসার পর বিমান বন্দরেই সিআরপিএফ এর উচ্চপদস্থ আধিকারিকরা গার্ড অব অনারের মাধ্যমে শেষ শ্রদ্ধাঞ্জলী জ্ঞাপন করেন।

0
তরঙ্গ বার্তা, ডিজিটাল ডেস্কঃ  জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামায় আত্মঘাতী সন্ত্রাসী হামলায় নিহত অসমের বীর সন্তান শহীদ মানেশ্বর বসুমাতারীর নশ্বর দেহে শেষ শ্রদ্ধাঞ্জলী জ্ঞাপন করেন অসমের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সনোয়াল সহ মন্ত্রীসভার অন্যান্য সদস্যরা।
আজ বায়ুসেনার বিশেষ বিমানে মানেশ্বর বসুমাতারীর নশ্বর দেহ গুয়াহাটীতে আসার পর বিমান বন্দরেই সিআরপিএফ, বায়ুসেনা ও আসাম পুলিশের উচ্চপদস্থ আধিকারিকরা গার্ড অব অনারের মাধ্যমে শেষ শ্রদ্ধাঞ্জলী জ্ঞাপন করেন।
এর পরই মন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা ও চন্দ্রমোহন পাটোয়ারীকে সাথে নিয়ে একে একে মুখ্যমন্ত্রী সানোয়াল বীর শহীদের মরদেহে অন্তিম শ্রদ্ধাঞ্জলী জানান। মুখ্যমন্ত্রী ও অন্যান্যরা মানেশ্বরের মরদেহকে কাঁধে বহন করে বিমান বন্দরের বাইরে নিয়ে যান।
গুয়াহাটী বিমান বন্দর থেকে শহীদ মানেশ্বরের মৃতদেহ তার নিজ বাড়ী তামুলপুরে হেলিকপ্টারে করে নিয়ে যাওয়া হয়।
ছবি: সংগৃহিত
তামুলপুরের কলাবাড়ীতে শহীদের বাসভবনে তার মৃতদেহকে শ্রদ্ধাঞ্জলী জানাতে ছুটে আসেন অসম মন্ত্রীসভার আরে’ক মন্ত্রী প্রমীলারানী ব্রহ্ম সহ তামুলপুরের অগুনিত জনতা। সম্পুর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় শেষকৃত্য সমাধা হয় হয় অসমের বীর শহীদ মানেশ্বর বসুমাতারীর।
উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার পুলওয়ামায় আত্মঘাতী সন্ত্রাসী হামলায় ৪৯ জন সিআরপিএফ শহীদের সাথে অসমের একমাত্র বীর সন্তান মানেশ্বর বসুমাতারীও শহীদ হোন। তাদের মৃত্যুতে সারা ভারতের সাথে অসমও শোকে ম্রিয়মাণ হয়। শোকস্তব্ধ হয়ে পড়ে অসমের জনতা।
বসুমাতারীর মৃত্যুতে মুখ্যমন্ত্রী সানোয়াল গভীর শোক প্রকাশ করে বলেন, দেশের জন্য তাদের আত্মবলিদান ভারতের সাথে সাথে অসমকেও ব্যথিত করেছে।
তাদের এই আত্মবলিদান কখনো বৃথা যাবে না। বীর শহীদ সিআরপিএফ জওয়ানরা অপরাজেয়। তিনি শহীদ বসুমাতারীর পরিবারকে অসম সরকারের পক্ষে ২০ লক্ষ টাকা অনুদানের কথা ঘোষনা করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here