এবার লাভজেহাদ আইনের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ জমিয়ত

0

মুসলিমদের হেনস্থা করার জন্যই লাভ জেহাদ আইন আনা হয়েছে, এমন অভিযোগ আনলো জমিয়ত উলেমা হিন্দ। এনিয়ে সর্বভারতীয় এ মুসলিম সংঘটনটি সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছে। বর্তমানে সুপ্রিম কোর্টে লাভ জেহাদ বিরোধী মামলা চলছে। এই মামলায় জমিয়তও একটি পক্ষ হতে চায় বলে জানানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, বিজেপি শাসিত রাজ্য সমূহে লাভ জেহাদ আইন আনা হয়েছে। মূলত মুসলিম যুবকদের হেনস্থা করার জন্যই এই আনা হয়েছে। অথচ যতটা ভিনধর্মী বিবাহ এখন পর্যন্ত সম্পন্ন হয়েছে সবক’টি ক্ষেত্রে হিন্দু মেয়েরা জানিয়েছে যে তারা স্বেচ্ছায় এসেছে। হিন্দু মেয়েদের আটকানো যাচ্ছে না বলেই এই আইন আনা হয়েছে, এমনটাই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

তবে বিশেষজ্ঞরা এও বলছেন, এনিয়ে কেবল বিজেপি রাজ্যসমূহেই উদ্বেগ বেশি। উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ, উত্তরাখণ্ড,হিমাচল প্রদেশের মতো বিজেপি শাসিত রাজ্যগুলোরএই আইন এনেছে। কোনো সময় দেখা যায় এই আইনের বলে সংশ্লিষ্ট যুবক সহ তার পরিবারের অন্যান্য লোকদেরও হেনস্থা করা হয় । তাই এই আইনের বিরুদ্ধে এবার জমিয়ত উলেমা হিন্দ কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছে।জমিয়তের আইনজীবী মকবুল বলেন, বিভিন্ন রাজ্যে কেবল মুসলিমদেরই হেনস্থা করা হচ্ছে।তাই জমিয়ত এই মামলার বিরুদ্ধে অন্তর্ভুক্ত হতে চায়’।

সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি এসএ বাবদে, এএস বোপান্না ও ভি রামাসুব্রহ্মন্যমের বেঞ্চ জানিয়েছে যে তাঁরা এই লাভজেহাদ বিরোধী পিটিশনের শুনানি করবে। সুপ্রিম কোর্ট জানিয়েছে যে তাঁরা ‘ সিটিজেন ফর জাস্টিস অ্যান্ড পিস’ সংগঠনের এরকম একটি মামলার শুনানিতেও রাজি হয়েছে।তবে সিটিজেন ফর জাস্টিস অ্যান্ড পিস-তাদের আবেদনে কিছুটা সংশোধনী আনতে চায়।বরং সংযোজন করতে চায়। সংগঠনটি জানিয়েছে, হিমাচল প্রদেশ ধর্মীয় স্বাধীনতা আইন ২০১৯ ও মধ্যপ্রদেশ ধর্মীয় স্বাধীনতা আইন ২০২০ -কে চ্যালেঞ্জ জানাতে চায়। যদিও উত্তরপ্রদেশ ও উত্তরাখণ্ড রাজ্যের আনা এই আইনের বিরুদ্ধে আগেই তারা মামলা করেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here