ব্রাহ্মণের পৈতা ছুঁড়ে ফেলে দিয়েছি, ওদের মারধর করতে হবে, বেফাঁস মন্তব্য করে বেকায়দায় কণ্ঠশিল্পী জুবিন

0
তরঙ্গ বার্তা ডেস্ক : অসমের একাংশ যুব প্রজন্মদের আইকন জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী জুবিন গাৰ্গ। সেটা অসমের বৈদ্যুতিন সংবাদ মাধ্যমে জুবিন সম্পর্কিত নিউজের কমেন্ট বক্সে কিংবা জুবিনের ফেসবুক পেজে চোখ রাখলেই বুঝা যায়। তাছাড়া অসমের রাজনৈতিক অঙিনায় বিচরণ করা একাংশ নেতা-মন্ত্রীদেরও প্রিয় ব্যক্তিত্বের তালিকায় জুবিন গার্গ।
কিন্তু বিতর্ক জুবিনের পিছু ছাড়েনা। বিতর্ক মানেই জুবিন গার্গ। মুখ খুলেই বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন তিনি৷ আর রাজ্যজুড়ে শুরু হয় প্রবল সমালোচনা। সরকারের উন্নয়ন নিয়ে তাঁর ব্যাঙ্গাত্মক মন্তব্য থেকে শুরু করে ‘কেব’ এর বিরোধীতা করতে গিয়ে ‘পলিটিক্স নকরিবা বন্ধু’ প্রতিবাদী গান গাওয়া অথবা ‘প্রয়োজন হলে সরকার ভেঙে দেবো’ বলে হুঙ্কার দেওয়া অনেকেই দেখেছেন।
আন্তর্জাতিক পর্যায়ে স্বর্ণপদক জয় করা অসম কন্যা হীমা দাসকে গো মাংস খাওয়ার প্রস্থাব দেওয়া, প্রকাশ্য সভায় তিন দিন থেকে নিজে লাগাতার মদ্যপান করছেন বলে মন্তব্য, সবকিছুই ছিল ‘শিল্পী’ নামক ব্যক্তিত্বের পরিপন্থী। কিন্তু জুবিন গার্গ যেন একটু ব্যতিক্রমী।
এবার ব্রাহ্মন সমাজের বিরুদ্ধে বেফাঁস মন্তব্য করে আরেক বিতর্কের সৃষ্টি করলেন জুবিন। কার্যত তাঁর এমন মন্তব্যে রাজ্যের ব্রাহ্মণ সমাজের মধ্যে তীব্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।
গত শুক্ৰবার মহানগর পূর্ণবিকাশ সংস্থা কর্তৃক আয়োজিত এক পাঞ্জা প্ৰতিযোগিতা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেছিলেন জুবিন গাৰ্গ। সেখানে ব্ৰাহ্মণ সম্প্ৰদায় নিয়ে এক বিতৰ্কিত মন্তব্য করে সমালোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে এলেন।
ব্রাহ্মণদের নিয়ে কী বলেছিলেন কণ্ঠশিল্পী জুবিন? সেই অনুষ্ঠানে ব্ৰাহ্মণরা যে পৈথা বা ‘লগুণ’ পরে তা তিনি ছুঁড়ে ফেলে দিয়েছেন বলে নিজের টি-শার্ট খুলে দেখান৷ তারপর বলেন, এই ব্রাহ্মণ টাহ্মণ কিছুই নয়। ব্ৰাহ্মণদের মারধরও করতে হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি। কিন্তু ব্রাহ্মণদের নিয়ে কেন এই মন্তব্য করে বসলেন জুবিন তার কোনো কারণ জানা যায়নি।
জুবিনের এমন মন্তব্য রাজ্যজুড়ে তীব্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। জানা গেছে, রাজ্যের প্রতিটি জেলার আলাদলতে এক একটি করে মামলাও করবে অসমের ব্রাহ্মণ সমাজ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here