আসু কি বিজেপির যুব ব্রিগেডে পরিণত হচ্ছে? জোরালো হচ্ছে প্রশ্ন

0

আসাম বিধানসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে বিজেপি রাজ্যজুড়ে সদস্যভুক্তি অভিযান চালিয়েছে। সোমবার দলটি হেনগ্রাবাড়ি অফিস চত্বরে গেরুয়া পার্টিতে যোগ হওয়া নতুন নেতাদের স্বাগত জানিয়েছে।

তবে বিজেপি’র এই সদস্যভুক্তিতে আসু সদস্যদের বেশি দেখা যাচ্ছে, এনিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে যে আসু কি ভারতীয় জনতা পার্টির যুব ব্রিগেডে পরিণত হয়ে গেছে? সঙ্গত কারণেই এ প্রশ্ন ওঠছে, কেননা সোমবার আসুর পরিচিত মুখদের বিজেপির সদস্য পদ নিতে দেখা গেছে। কে ছিলেননা সদস্যভুক্তিতে? প্রদীপ দাস নামে আসুর প্রাক্তন সিনিয়র সদস্যও অন্তর্ভুক্ত ছিলেন এই অভিযানে । তার সাথে ছিলেন রাহুল দাস, গোলাঘাট ছাত্র ইউনিয়নের নেতা পরিখিত দত্ত এবং শীর্ষস্থানীয় ছাত্র ইউনিয়নের অন্যান্য নেতারা বিজেপির সদস্যপদ গ্রহণ করেন।

বিজেপির রাজ্যিক সভাপতি রঞ্জিত দাস আসু নেতাদের অন্তর্ভুক্তি নিয়ে বলেন, এতে বোঝা যায় বিজেপির মতাদর্শের প্রতি আকৃষ্ট হচ্ছে যুব সমাজ।তিনি যোগ করেন, “আমরা আঞ্চলিক এবং যুব রাজনীতির বিষয়ে লোকদের কথা বলতে দেখি। এই যুবকরা বিজেপিতে যোগ দেওয়ার বিষয়টি ইঙ্গিত দেয় যে আসামের যুবকরা ভারতীয় জনতা পার্টির সাথে রয়েছে।”

তবে তাৎপর্যপূর্ণভাবে বিজেপি নেতারা তাদের স্বাগত জানাতে গিয়ে “প্রাক্তন আসু” শব্দটি ব্যবহার করছেন। এতে আরো জোরালো ভাবে প্রশ্ন উত্থাপিত হচ্ছে।

তবে আসুর শীর্ষ নেতৃবৃন্দ বিজেপির এই দাবি খণ্ডন করেছেন। আসু সাধারণ সম্পাদক শঙ্কর জ্যোতি বড়ুয়া এর প্রতিক্রিয়ায় বলেন, “প্রাক্তন আসু” এই ট্যাগ ব্যবহার করা ভুল।’ এটা একটা বিচ্ছিন্ন ঘটনা। কয়েকজন প্রাক্তন আসু নেতা সুবিধাবাদী রাজনীতির আশ্রয় নিয়েছেন মাত্র।

শঙ্কর জ্যোতি বড়ুয়া যোগ করেন, বিজেপিতে যোগ দেওয়া তথাকথিত তরুণ নেতা এখন আর তরুণ নন। আমরা সকলেই জানি এখন তাঁর বয়স প্রায় ৬০ বছর।

এর সাথে আসু সম্পাদক জানান, নির্বাচনের আগে ছাত্র ইউনিয়ন বন্যা, বাঁধ নির্মাণ, মূল্যবৃদ্ধি সহ বিভিন্ন ইশ্যুর ওপর আওয়াজ ওঠানোর পরিকল্পনা নিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here