অর্থনৈতিক উন্নয়নে ভারতের অপেক্ষা এগিয়ে বাংলাদেশ : এডিবির প্রতিবেদন

0
ছবি: সংগৃহীত

তরঙ্গবার্তা অনলাইন ডেস্ক: ভারত অপেক্ষা প্রতিবেশী ছোট্ট রাষ্ট্র বাংলাদেশ অর্থনৈতিক উন্নয়নে অনেক এগিয়ে। সম্প্রতি এশিয়ান উন্নয়ন ব্যাংক কর্তৃক প্রকাশিত সর্বশেষ অর্থনৈতিক আপডেটে দেখা গেছে দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক বৃদ্ধির দিকে এগিয়ে।

এডিবির আপডেটের চার্ট -১ এবং চার্ট- ২ তে দেখা গেছে, বাংলাদেশ মুদ্রাস্ফীতির স্থিতিশীল অবস্থা বজায় রেখে চলছে এবং ধারাবাহিক ভাবে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অব্যাহত রাখছে৷

২০১৬ সাল থেকেই বাংলাদেশে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ৭% হারে বেড়ে চলেছে। যা চলতি বছরেই ৮% ছাড়িয়ে যাবে এবং পরের বছরও তা অব্যাহত থাকবে।

দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য বড় অর্থনীতির দেশগুলোর প্রবৃদ্ধিও হয় মাঝারি মাত্রায় সীমাবদ্ধ (শ্রীলঙ্কা) অথবা ওঠা-নামা (পাকিস্তান) করছে।

২০১৬ সালের পর থেকেই ভারতের অর্থনৈতিক বিকাশ কমছে। পণ্য বিক্রয় কমে যাওয়া এবং শিল্প উৎপাদন কমে যাওয়া সংক্রান্ত তথ্য দেখে ধারণা করা হচ্ছে এবছর ভারতের প্রবৃদ্ধি ৭% এর নিচে থাকবে।

ভারত থেকে বাংলাদেশ এগিয়ে যে কারণে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক কাঠামো ভারতের চেয়ে একেবারেই আলাদা। ভারতে সেবা খাতের প্রবৃদ্ধি বাড়ছে অপ্রত্যাশিতভাবে।

কিন্তু শিল্প-কারখানার অবদান প্রত্যাশার চেয়েও কম। বাংলাদেশের শিল্পখাতে প্রবৃদ্ধির হার বেড়ে চলেছে প্রত্যাশার চেয়েও অনেক বেশি। যার ফলে বাংলাদেশে নতুন নতুন কর্মসংস্থানও বেড়ে চলেছে।

এদিকে ভারতের মোট জনসংখ্যার বেশিরভাগ লোক এখনও কৃষিক্ষেত্রে আটকে আছে, যা দেশের জিডিপি বৃদ্ধিতে সবচেয়ে কম অবদান রাখছে। তাছাড়া কৃষিক্ষেত্র কর্মসংস্থান বাড়াতে সর্বাধিক সম্ভাবনা থাকা শিল্প খাতগুলোর বিকাশ এবং কর্মসংস্থান তৈরির গতি ধীর হয়ে এসেছে।

বাংলাদেশের আভ্যন্তরীণ শিল্পখাত অনেক শক্তি প্রদর্শন করছে। যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের বাণিজ্য যুদ্ধ তীব্র হওয়ার মধ্যেও বাংলাদেশের রপ্তানি বেড়েছে। ২০১৮ সালে রপ্তানির হার ছিলো ৬.৭%। যা ২০১৯ সালে বেড়ে ১০.১% হয়েছে।

গার্মেন্টস খাতে রপ্তানি ৮.৮% থেকে বেড়ে ১১.৫% হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র ছাড়াও অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, ভারত, জাপান, চীন এবং দক্ষিণ কোরিয়ায় বাংলাদেশের গার্মেন্ট রপ্তানির চাহিদা বেড়েছে।

ভারতের চেয়ে বাংলাদেশের রপ্তানির নতুন বাজারও বেড়েছে। ২০১২-১৩ অর্থ বছর থেকে ভারতের রপ্তানি বেড়েছে মাত্র ১.৫%।

তবে, এডিবি আশাবাদী, আগামী অর্থবছরে ভারতীয় অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াবে, তখন ভারতের অর্থনীতি ৭.২ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

(দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here