আফগান সরকার ও তালিবানদের মধ্যে ‘ঐতিহাসিক’ শান্তি আলোচনা শুরু, আলোচনায় অংশীদার ভারতও

0

অবশেষে আফগান সরকার ও তালিবানদের মধ্যে ‘ঐতিহাসিক’ শান্তি আলোচনা শুরু হয়েছে। উপসাগরীয় দেশ কাতারে আফগান সরকার ও তালিবান প্রতিনিধিদের মধ্যে প্রথমবারের মতো শান্তি আলোচনাকে কেন্দ্র করে আশার আলো দেখছেন বিশেষজ্ঞরা।

আমেরিকার পুতুল আখ্যা দিয়ে আসা আফগান সরকারের সঙ্গে তালেবানদের আলোচনা এটাই প্রথম। সেই আলোচনায় ভারতকেও এক অংশীদার হিসাবে রাখার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। সেই মতোই এদিনের আলোচনায় অংশ নেন ভারতীয় বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। এদিন অনুষ্ঠানে জয়শঙ্কর বলেন, ‘ভারত-আফগানিস্তানের বন্ধুত্ব দীর্ঘদিনের। সেদেশের ৪০০টিরও উপর উন্নয়নমূলক প্রোজেক্টে ভারত অংশ নিয়েছে।’

এদিন অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার পর জয়শঙ্কর টুইট করে লেখেন, ‘আজ দোহায় আফগান শান্তি আলোচনা সম্মেলনে সম্বোধন করি। এই শান্তি প্রক্রিয়াটি অবশ্যই আফগান-নেতৃত্বাধীন, আফগান-মালিকানাধীন এবং আফগান-নিয়ন্ত্রিত হবে। আশা করি এই শান্তি প্রক্রিয়া আফগানিস্তানের জাতীয় সার্বভৌমত্ব এবং আঞ্চলিক অখণ্ডতাকে সম্মান করবে, মানবাধিকার ও গণতন্ত্রের প্রচার করবে, সংখ্যালঘু, নারী এবং দুর্বলদের স্বার্থ নিশ্চিত করবে, কার্যকরভাবে দেশজুড়ে সহিংসতার সমাধান করবে।’

গত ফেব্রুয়ারিতে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তালিবানের নিরাপত্তা চুক্তির পরই এই আলোচনা শুরুর কথা ছিল। আফগান সরকারের একটি প্রতিনিধি দল এই শান্তি আলোচনায় দোহায় রয়েছেন। তালিবান ও আফগান সরকারের প্রতিনিধিদের মধ্যে এটাই সরাসরি প্রথম কোনো আলোচনা।

তালিবানরা সবসময়ই আলোচনার আমন্ত্রণ প্রত্যাখ্যান করে আফগান সরকারকে আমেরিকার পুতুল বলে আখ্যা দিত। তবে দু’পক্ষই এখন সহিংসতার অবসান আশা করছে যা ১৯৭৯ সালে শুরু হয়েছিল।

উল্লেখ্য, গত আগস্টে আফগান সরকার শেষ ৪০০ তালিবান বন্দিকে মুক্তি দিতে শুরু করে। তবে সবাইকে সরাসরি মুক্তি দেওয়া হয়নি। কারণ ফ্রান্স ও অস্ট্রেলিয়া বলছে, এর মধ্যে ছয়জন তাদের নাগরিকদের ওপর হামলার জন্য দায়ী। সব মিলিয়ে বন্দিদের মুক্তি ও আলোচনা স্থল দোহায় স্থানান্তরের পর আলোচনার পথ উন্মুক্ত হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here