‛৫ হাজার কোটি টাকার সম্পত্তির পেপার মিল দুটিকে জলের দামে বিক্রি করতে চাইছে বিজেপি সরকার’

0
ছবি : সংগৃহিত

তরঙ্গবার্তা অনলাইন ডেস্ক: হিন্দুস্তান পেপার করপোরেশনের অধীন কাছাড় পেপার মিল এবং জাগিরোড পেপার মিল দুটি চার বছর থেকে বন্ধ। কর্মচারীরা বেতন হীন ভাবে, অভুক্ত অবস্থায় বিনা চিকিৎসায়, দিন যাপন করছেন। অসমে কোটি কোটি টাকা ব্যয় করে বিশ্ব বিনিয়োগ সন্মেলন অনুষ্ঠিত হল। কিন্তু নিজ রাজ্যের এক মাত্র বৃহৎ পেপার উদ্যোগ খোলার ব্যাবস্থা করছে না সরকার। প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ ভাবে জড়িত প্রায় ২ লাখ মানুষের জীবনে অন্ধকার নেমে এসেছে।

শিলচরের বিজেপি সাংসদ ড. রাজদীপ রায় লোকসভায় পেপার মিল দুটির কর্মহীন শ্রমিকদের দুরবস্থার কথা তুলে ধরে জানিয়েছিলেন, বিনা বেতনে, বিনা চিকিৎসায় মারা গেছেন ৫০ জনেরও বেশি। অবিলম্বে মিল দুটি খোলার জোরাল দাবি জানিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের মন গলেনি। এহেন পরিস্থিতিতে রাজ্য এবং কেন্দ্রের বিজেপি সরকার শ্রমিকদের সঙ্গে বিশ্বাস ঘাতকতা করেছে বলে সরাসরি অভিযোগ করল পেপার মিল দুটির সংগঠন জয়েন্ট একশন কমিটি অফ রেকগনাইজ ইউনিয়নের নেতারা।

গুয়াহাটি প্রেস ক্লাবের এক সাংবাদিক সম্মেলনে মানবেন্দ্র চক্রবর্তী, রামলাল ডেকা, নজিমুল ইসলাম, উদ্ধব দাস প্রমুখ এই অভিযোগ করে অসমকে আর্থিকভাবে, কর্মসংস্থান, শিল্প বিনিয়োগে এগিয়ে নিয়ে যাবার জন্যে ‘নাগরিকত্ব আইন’ বিরোধী আন্দোলনকারীদের প্রতি আহ্বান জানান। প্রেস ক্লাবে এদিন ‘নাগরিকত্ব আইন’ বিরোধী আন্দোলনে নিহতদের স্মৃতিতে এক মিনিট নীরবতা পালন করেন ইউনিয়নের নেতারা।

ইউনিয়ন নেতা মানবেন্দ্র চক্রবর্তী বলেন, এইচপিসি-র অধীন কেরালার কুট্টাযাম এ এক বন্ধ পেপার মিল কেরালা সরকার আগাম ২৫ কোটি টাকা দিয়ে অধিগ্রহণ করেছে, বাকি টাকা এইচপিসি দিতে রাজি হয়েছে, গত ২৫ নভেম্বর অধিগ্রহণ এর কথা জানিয়েছে। অথচ অসমের দুটি পেপার মিলের প্রায় ৫ হাজার কোটি টাকার সম্পত্তি জলের দামে বিক্রি করে দিতে চাইছে সরকার। শ্রমিক নেতা অভিযোগ করেন গুয়াহাটির বড়ঝার বিমান বন্দরকে বৃহৎ শিল্প গোষ্ঠী আদানিকে হস্তান্তর করা হয়েছে। পেপার মিল দুটিও সরকার জলের দামে কোনও শিল্প গোষ্ঠীকে বিক্রি করে দিতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here