ফকির বাজার স্টুডেন্টস্ ইউনিয়নের উদ্যোগে আল্লামা তৈয়ীবুর রহমানের স্মৃতিচারণ সভা সম্পন্ন

0
ছবি : নিজস্ব
রুহুল কুদ্দুস, তরঙ্গ বার্তা, করিমগঞ্জ : ফকির বাজার স্টুডেন্টস্ ইউনিয়ন’র উদ্যোগে সদ্য প্রয়াত উত্তর পূর্ব ভারতের আমীরে শরীয়ত সর্বজন শ্রদ্ধেয় ড. আল্লামা তৈয়ীবুর রহমান বড়ভূইয়া সাহেবের স্মরণে স্থানীয় এমকে গান্ধী কলেজে গতকাল এক স্মৃতিচারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। প্রয়াত ধর্মগুরুর স্মৃতিচারণ সভায় জেলার শিক্ষাবীদ সহ খ্যাতনামা ধর্মগুরুরাও উপস্থিত ছিলেন।
সম্পূর্ণ ধর্মীয় বিধি মেনে ক্বিরাত পাঠের মাধ্যমে সভা আরম্ভ হয়। সভার শুরুতে ফকির বাজার স্টুডেন্টস্ ইউনিয়ন’র পক্ষে বরাকের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ তথা বুদ্ধিজীবী ড. শিবতপন বসু’র বিদেহী আত্মার প্রতি গভীর শোক প্রকাশ করা হয়।
এমকে গান্ধী কলেজের অধ্যক্ষ ইকবাল আহমেদ চৌধুরী’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত স্মৃতিচারণ সভায় মূখ্য বক্তা হিসাবে মুফতি আব্দুল বাছিত ক্বাসিমি বলেন আমীরে শরীয়ত রহঃ এর মতো মহান ব্যক্তিত্বের স্মৃতিচারণ সভার আয়োজন করে ফকির বাজার স্টুডেন্টস্ ইউনিয়ন প্রশংসনীয় উদ্যোগ হাতে নিয়েছে।
মুফতি বাছিত আমীরে শরীয়তের দীর্ঘ ৯৫ বছর বয়সের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করে বলেন, সব ধর্মের মানুষ আমীরে শরীয়তের কাছে যেত। সবাইকে তিনি সমান চোখে দেখতেন, তাঁর কাছে যে কোন সমস্যা নিয়ে গেলে সমাধান পাওয়া যেত।

তিনি বলেন, হজরত আমীরে শরীয়তের জীবন ছিল সম্পুর্ণ কলুষমুক্ত। তিনি তাঁর সম্পূর্ণ জীবন পরিচালনা করেছেন অত্যন্ত ন্যায়পরায়ণতার সাথে। তিনি জীবনে কাউকে কটাক্ষ করে কথা বলেননি, সবাইকে ভালোবাসতেন। বিশেষ করে ছাত্রছাত্রীদের কে অত্যন্ত স্নেহ করতেন। শিক্ষার প্রচারে সারা জীবন উৎসর্গ করেছেন।
মুফতি বাছিত আরোও বলেন, আমীরে শরীয়ত ধর্মীয় শিক্ষার সাথে সাথে সাধারণ শিক্ষায়ও শিক্ষিত ছিলেন। তিনি বলেন হজরতের ব্যক্তিত্ব আমরা চিনতে পারিনি কিন্তু ২০১৬ সালে বদরপুরের মালুয়ায় ঐতিহাসিক ফেক্বাহ সেমিনারে তাঁর ব্যক্তিত্বের পরিচয় ঘটেছিল বিশ্বব্যাপী খ্যাতনামা ইসলামিক বিশেষজ্ঞদের কাছে, তারাই হজরতকে চিনতে পেরেছিলেন। এই মহান ব্যক্তিত্বের ইন্দ্রপতনে গোটা দেশ শোক প্রকাশ করেছে।
বিশেষ বক্তা হিসাবে বদরপুর নবীন চন্দ্র কলেজের প্রাক্তন অধ্যাপক ও প্রাক্তন বিধায়ক নিশীথ রজ্ঞন দাস বলেন আমীরে শরীয়ত এর মত ব্যক্তিদের স্মৃতিচারণ সভা থেকে আমাদের শিক্ষা নেওয়ার অনেক কিছু আছে, তিনি বলেন যে হজরত আমীরে শরীয়ত ছিলেন সর্বজন শ্রদ্ধেয় উনার কাছে কে হিন্দু আর কে মুসলিম তার কোন পরিচয় ছিল না উনি সবাইকে ভালোবাসতেন, আমার সাথে উনার খুব মধুর সম্পর্ক ছিল, উনি সবসময় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখার চেষ্টা চালিয়েছেন। তিনি প্রয়াত আমীরের জীবন আদর্শ মেনে পথ চলার পরামর্শ দেন।
ছবি : নিজস্ব
ভারতের বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে বলতে গিয়ে তিনি বলেন, এদেশে মুসলিমদেরকে তাড়িয়ে দিলে হিন্দুরা সুরক্ষিত থাকতে পারবে না, একটার পর একটা আঘাত আসতে থাকবে। বর্তমানে ঐক্যের খুব অভাব, তাই তিনি হিন্দু মুসলিম সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে চলার পরামর্শ দেন। আমীরে শরীয়ত তৈয়ীবুর রহমান আজীবন এই চেষ্টাই চালিয়েছিলেন বলে তিনি উল্লেখ করেন।

স্মৃতিচারণ সভায় আমীরে শরীয়ত আল্লামা তৈয়ীবুর রহমান’র বিদেহী আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে গজল পরিবেশন করে একে আজাদ হাইস্কুলের ছাত্রী নাসিরা খানম চৌধুরী।

অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন শিক্ষক সামছুল হক চৌধুরী, ফকির বাজার স্টুডেন্টস্ ইউনিয়নের যুগ্ম সম্পাদক ইকবাল আহমেদ খান, সর্বধর্ম সমন্বয় সমিতির সাধারণ সম্পাদক আমির হুসেন, এফ‌এস‌ইউ-র কার্যকরী সভাপতি সাইদুর রহমান চৌধুরী।
এছাড়া আমন্ত্রিত অতিথি হিসাবে সভায় উপস্থিত ছিলেন রয়েল জুনিয়র কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল আহাদ চৌধুরী, ফকির বাজার পাবলিক স্কুলের প্রধান শিক্ষক জিয়াউর রহমান চৌধুরী, শিক্ষক আতাউর রহমান চৌধুরী ও জুবাইর আহমেদ, দক্ষিণ করিমগঞ্জের ছাত্র নেতা দি‌ল‌‌ওয়ার হুসেন প্রমুখ।
সভার শেষ মুহূর্তে মুফতি আব্দুল বাছিত আল-ক্বাসিমি সাহেবের মোনাজাতের মাধ্যমে সভা সমাপ্তি হয়।

 

খবরসহ আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত সব লেখা ফেসবুকে পেতে এখানে ক্লিক করুন এবং নোটিফিকেশনের জন্য লাইক দিন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here